মঙ্গলবার, ১৮ Jun ২০২৪, ০২:৪৬ অপরাহ্ন

পাটগ্রামে ছোট ভাইয়ের ইটের দেয়ালে অবরুদ্ধ বড়ভাইয়ের পরিবার

পাটগ্রামে ছোট ভাইয়ের ইটের দেয়ালে অবরুদ্ধ বড়ভাইয়ের পরিবার

লালমনিরহাট প্রতিনিধি।।

লালমনিরহাটের পাটগ্রামে ইটের দেয়াল নির্মাণ করে বড় ভাইয়ের রাস্তা বন্ধ করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে ছোট ভাইয়ের বিরুদ্ধে।

ছোট ভাই জামাল হোসেনের এমন কান্ডে বড় ভাই নূর ইসলাম একরকম অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছেন পরিবার-পরিজন নিয়ে।

এমন ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার বাউরা ইউনিয়নের নবীনগর মাস্টার পাড়ায়।

বড় ভাই নূর ইসলাম (৫৫) ও ছোট ভাই জামাল উদ্দিন (৪৭) উপজেলার মেসের ঘাট নবীনগর গ্রামের মৃত গনর উদ্দিনের ছেলে।

স্থানীয়দের দ্বারে দ্বারে ঘুরে বিচার না পেয়ে
বড়ভাই নূর ইসলাম ছোট ভাই জামাল হোসেনের বিরুদ্ধে স্থানীয় থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, নুর ইসলামের পরিবারের চলাচলের কোন রাস্তা নেই। ধানক্ষেতের (আইল)রাস্তা দিয়ে চলাচল করছে। দীর্ঘদিনের চলাচলের রাস্তাটি ছোট ভাই ইটের দেয়াল নির্মাণ করেন। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় চেয়ারম্যান সমাধান করলেও ভুক্তভোগী পরিবারটি তা মেনে নেয়নি।
এতে নুর ইসলামের পরিবার অবরুদ্ধ অবস্থায় আছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, নূর ইসলাম ১৯৭৮সালে তাঁর অপর দুই ভাই জামাল হোসেন ও আলম হোসেনের যৌথ নামে ৩৩ শতাংশ জমি কেনেন। পরবর্তীতে জমি বন্ঠণ না করেই ১৯৮০ সালে নূর ইসলাম ও জামাল হোসেন বাড়ি করেন। বড় ভাই নূর ইসলামের বাড়ি ছোট ভাই জামারের বাড়ির পেছনে হওয়ার কারণে নূর ইসলামকে জামাল হোসেনের বাড়ির পাশ দিয়ে যাতায়ত করতে হতো। ৪৩ বছর ধরে নূর ইসলাম জামাল হোসেনের বাড়ির পাশ দিয়ে রাস্তা হিসেবে ব্যবহার করলেও ২০২৩ এসে পারিবারিক কলহের জেরে জামাল হোসেন ইটের দেয়াল তুলে নূর ইসলামের রাস্তা বন্ধ করে দেন। এতে বিপাকে পড়েন নূর ইসলাম ও তার পরিবার। গত এক মাস ধরে নূর ইসলাম পরিবার-পরিজন নিয়ে একরকম হয়ে অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছেন।

ভুক্তভোগী নূর ইসলাম বলেন, আমি যখন জমি কিনি তখন ভাইয়েরা নাবালেক ছিল। তবুও ভাইদের সমান ভাগ দিয়েছি। এখন ভাইয়েরা ইটের দেয়াল তুলে আমার নিজের যাতায়তের রাস্তা বন্ধ করে রেখেছেন। আমি গত এক মাস ধরে বাড়িতে অবরুদ্ধ হয়ে আছি পরিবার-পরিজন নিয়ে।

তিনি আরও বলে, পাটগ্রাম থানায় লিখিত অভিযোগ করলে আমার উপস্থিতিতে ওসি স্যার তাঁর অফিসে এএসআই মতিয়ার রহমাকে ডেকে নিয়ে দেয়ালটি ভেঙ্গে দিতে বললেও মতিয়ার রহমান ঘটনাস্থলে এসে ফিরে যান। দেয়ালটি এখনও আছে। চেয়ারম্যান এসে দেওয়ালটি না ভেঙে
আমাদের অন্যের রাস্তা দিয়ে চলাচল করতে বলে এতে আমরা সন্তুষ্ট না।

এ বিষয়ে জামাল হোসেন বলেন, আমার বাবার পত্রিক সম্পত্তির জমি পেয়ে বাড়ি নির্মাণ করেছি। আমার অংশের জমিতে দেয়াল নির্মাণ করছি আমি কারো রাস্তা বন্ধ করিনি।

এ বিষয়ে বাউরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম মিরন বলেন,বিষয়টি জানার পর ঘটনাস্থলে গিয়েছি গিয়ে দুই ভাইয়ের মধ্যে সমঝোতা করে দিয়েছি। তিন ভাইয়ের নামে ৩৩ শতক জমি ভাগাভাগি করে নিয়েছেন। দেয়াল নির্মাণ করেছেন ছোট ভাই তার নিজস্ব জমিতে। পরিবারটি অবরুদ্ধের বিষয়ে তিনি বলেন, পরিবারটি অবরুদ্ধ নয় তাদের চলাচলের জন্য একটি ছোট্ট রাস্তা দেওয়া হয়েছে।

পাটগ্রাম থানার অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) ফেরদৌস ওয়াহিদ অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, বিষয়টি স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সমাধান করে দিয়েছেন। এ ঘটনায় থানার উপ-পরিদর্শক (এএসআই) মতিয়ার রহমানকে ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছিল।

পাটগ্রাম উপজেলার নির্বাহী অফিসার নুরুল ইসলাম বলেন,এ বিষয়টি জানা নেই তবে ভুক্তভোগী পরিবারটি আবেদন করলে অবশ্যই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2024 Rangpurtimes24.Com
Developed BY Rafi IT