রবিবার, ১৪ Jul ২০২৪, ১০:৪২ পূর্বাহ্ন

ডিমলায় শয়তানের নিঃশ্বাস- প্রভাবে সর্বস্ব হারাচ্ছে সাধারণ মানুষ

ডিমলায় শয়তানের নিঃশ্বাস- প্রভাবে সর্বস্ব হারাচ্ছে সাধারণ মানুষ

জামান মৃধা, ডিমলা (নীলফামারী):

বর্তমান সময়ে ভয়ংকর মাদক স্কোপোলামিন। অপরাধ জগতে যার পরিচিত ”ডেভিলস ব্রেথ” বা ‘শয়তানের শ্বাস’ নামে। পাশ্চাত্যের এই ভয়ংকর মাদক এখন দেশের সংঘবদ্ধ অপরাধী চক্রের হাতে। তাদের টার্গেট হয়ে স্বেচ্ছায় নিজেদের মূল্যবান মালামালসহ টাকা পয়সা, সোনা-গহনা হারাতে বসেছেন সাধারণ মানুষজন।

নীলফামারীর ডিমলার মতো মফস্বল উপজেলা শহরেও এদের পদচারণা দেখা দেওয়ায় উদ্বিগ্ন এসব প্রত্যন্ত এলাকার নিরীহ সাধারণ মানুষ।

এ ঘটনার ভুক্তভোগী রামপ্রসাদ বলেন, রবিবার (১৫ অক্টোবর) দুপুরের দিকে দোকানের মালিক তাকে ৮৭ হাজার টাকা ইসলামী ব্যাংকের শাখা থেকে দুটি হিসাব নম্বরে পাঠাতে বলেন। ব্যাংকের ৫০ গজ দূরে একটি সিএনজি চালিত অটোরিকশা দাঁড়ানো ছিল। ওই অটোরিকশায় আগে থেকে দুজন লোক বসা ছিলো। আমি ব্যাংকের কাছাকাছি পৌঁছানো মাত্র বসে থাকা এক ব্যক্তি কয়েকটি বিদেশি নোট দেখিয়ে বলেন, ভাই এই টাকা কি ঠিক আছে, কোথায় ভাঙ্গানো যাবে? আপনি একটু দেখিয়ে দিবেন। আমি ওই ব্যক্তির কথা বিশ্বাস করে টাকা হাতে নেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে অন্যরকম হয়ে যাই। এরপর তাদের কথামতো তিনি নিজেই প্রতারকদের হাতে তুলে দেন তার নিকট থাকা ৮৭ হাজার টাকা।

এই টাকা নিয়ে দ্রুত সটকে পরে প্রতারক চক্র। রামপ্রসাদ বুঝতেই পারেননি তিনি নিজের হাতে স্বেচ্ছায় প্রতারক চক্রের হাতে টাকা তুলে দিলেন। দোকান মালিক মোশাররফ হোসেন বলেন, আমার দোকানের কর্মচারী রামপ্রসাদ ধোঁকাবাজির শিকার হয়েছে। আমার দোকান থেকে ইসলামী ব্যাংকের দূরত্ব আনুমানিক ৩০০ গজ। মাত্র কয়েক মিনিটের রাস্তা। এরই মধ্যে এ ঘটনা ঘটে গেল! আমরা কিছুই বুঝতে পারিনি। সে ধোঁকাবাজির শিকার।

অপরাধ বিশ্লেষকদের ভাষ্য অনুযায়ী, মূলত প্রতারকার স্কোপালামিন নামে ভয়ংকর মাদক ব্যবহার করে। শয়তানের শ্বাস বা ডেভিলস ব্রেথ হিসেবে পরিচিত পাওয়া এই মাদক মস্তিস্কের সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতা নষ্ট করে দেয়। অন্যের দেয়া আদেশকে যান্ত্রিকভাবে অনুসরণ করতে বাধ্য করা হয় স্বেচ্ছায়। তারা নিজে কিছু চিন্তা করতে পারেন না শুধু সামনের লোক যা বলবে তাই অনুসরণ করেন রোবটের মত। যার ফলে দুর্বৃত্তরা মানুষজনকে সর্বস্বান্ত করতে মোক্ষক অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করছে এটি।

ডিমলা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) লাইছুর রহমান বলেন, প্রতারক চক্রের খপ্পরে পড়ে গ্রাহকের টাকা খোয়ানোর বিষয়টি তিনি শুনেছেন। লিখিত পাওয়া গেলে দ্রুত সময়ের মধ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এম.এফ/রংপুর টাইমস

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2024 Rangpurtimes24.Com
Developed BY Rafi IT