সোমবার, ২৪ Jun ২০২৪, ০৬:২২ পূর্বাহ্ন

ডিমলায় ধানের ক্ষেতে মাজরা পোকার আক্রমণ, দিশেহারা কৃষক

ডিমলায় ধানের ক্ষেতে মাজরা পোকার আক্রমণ, দিশেহারা কৃষক

জামান মৃধা, ডিমলা (নীলফামারী)

অনেকটাই কৃষি নির্ভর উত্তরের জনপদ নীলফামারী। এই কৃষি নির্ভর জেলার সীমান্ত তীরবর্তী তিস্তা নদী ঘেঁষা ডিমলা উপজেলায় পাকা বোরো ধানে ব্যাপক আকারে মাজরা পোকার আক্রমণ দেখা দিয়েছে।

 

ফলে ধান গাছের পাতা মরে হলুদ বর্ণ ধারণ করছে। এই দুঃসময়ে উপজেলা কৃষি বিভাগের কর্মকর্তাদের অনুপস্থিতি ভাবিয়ে তুলেছে সাধারণ কৃষকদের]

উপজেলার প্রায় সব এলাকার ক্ষেতের বোরো ধানের গাছে ব্যাপকভাবে মাজরা পোকা আক্রমণ করেছে। মাজরা পোকার আক্রমণের কারণে অধিকাংশ ধানগাছের পাতা মরে হলুদ বর্ণের আকার ধারণ করেছে। কোনো কোনো জমির ধান গাছ প্রায় পাতাশূন্য মাটিতে মিশে যাচ্ছে। মাজরা দমনে কৃষকেরা বিভিন্ন কোম্পানির কীটনাশক ব্যবহার করেও কোনো ধরনের সুফল পাচ্ছেন না।

 

সরেজমিনে দেখা যায়, উপজেলার বালাপাড়া ইউনিয়নের সুন্দর খাতা, ডিমলা সদর ইউনিয়নের রামডাঙ্গা, পশ্চিম ছাতনাই ইউনিয়নের কালিগঞ্জ, গয়াবাড়ী ইউনিয়নের পশ্চিম খড়িবাড়ী, খালিশা চাপানী ইউনিয়নের ছোটখাতা, ঝুনাগাছ চাপানী ইউনিয়নের কাঁকড়া বাজারসহ বিভিন্ন এলাকার ধানক্ষেতে এই রোগটি দেখা দিয়েছে। আক্রান্ত জমি থেকে ধীরে ধীরে পার্শ্ববর্তী জমিতেও বিস্তার লাভ করছে।

ঝাড় সিংহেশ্বর গ্রামের কৃষক ওমর ফারুক বলেন, এ বছর তিনি প্রায় ৫ বিঘা জমিতে উচ্চ ফলনশীল ব্রি-২৮ জাতের বোরো ধান চাষ করেছেন। তারসহ গ্রামের অধিকাংশ কৃষকের জমিতে ব্যাপকভাবে মাজরা পোকা আক্রমণ করেছে। পোকা দমনের জন্য প্রায় সব কৃষক দানাদার ও তরলজাতীয় কীটনাশক ব্যবহার করছেন, কিন্তু কিছুতেই থামানো যাচ্ছে না মাজরা পোকার আক্রমণ।

 

একই গ্রামের কৃষক শরৎ চন্দ্র অধিকারী অভিযোগ করে বলেন, সাধারণ প্রান্তিক পর্যায়ের কৃষক ধান নিয়ে চরম বিপদে থাকলেও উপজেলা কৃষি অফিস থেকে কেউ ধানের খোঁজ খবর নেননি। এবং অনেকেই কৃষি অফিসের কাউকে চেনেন না!

কালিগঞ্জ গ্রামের কৃষক সেলিম বলেন, আমার কাটারিভোগ ধানে মাজরা পোকা আক্রমণ করেছে। অনেক ওষুধ ছিটিয়েও কোনও লাভ হচ্ছে না।

ছোটখাতা গ্রামের আব্দুল করিম ও আব্দুল মজিদ এবং হুমায়ূন কবিরসহ একাধিক কৃষক বলেন, বোরো ধান রোপনের শুরুর দিকে আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় তেমন কোন রোগবালাইয়ের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়নি। তাই কৃষকরা ভাল ফলনের আশা করেছিল। কিন্তু ধান পাক ধরার পূর্ব মুহূর্তে মাজরা পোকা আক্রমণ শুরু করেছে। ধানক্ষেতে বিভিন্ন কোম্পানির ওষুধ ছিটিয়ে কোনও কাজ হয়নি। এতে ভয়াবহ ফলন বিপর্যয় ঘটতে পারে বলে কৃষকেরা আশঙ্কা করছেন।

সুন্দর খাতা গ্রামের কৃষক হাবিবুল হাসান হাবিব বলেন, এ বছর তিনি প্রায় ১০ বিঘা জমিতে হাইব্রিড মোটা জাতের বোরো ধান চাষ করেছেন। তিনিসহ গ্রামের অধিকাংশ কৃষকের ধানক্ষেতে ব্যাপকহারে মাজরা পোকা আক্রমণ শুরু করেছে। এ পোকা দমনে প্রায় সকল কৃষক বাজারের দোকান থেকে কীটনাশক ব্যবহার করছেন, কিন্তু কিছুতেই থামানো যাচ্ছে না এ পোকার আক্রমণ। মাজরা পোকার পাশাপাশি বোরো ধান ক্ষেতে বাদামি দাগ, নেক ব্লাস্ট, খোল পচা এবং কারেন্ট পোকাসহ বিভিন্ন ধরনের ছত্রাকজনিত রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। আমরা দিশেহারা হয়ে পড়েছি, এখন কি করবো?

কাঁকড়া বাজার গ্রামের কৃষক শামীম আহমেদ জানান, তাদের গ্রামের বোরো ধান ক্ষেতে কয়েক বছরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি মাজরা পোকার প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। পোকা দমন করা না গেলে ধানের ফলনে বড় ধরনের প্রভাব পড়বে। উপজেলা কৃষি অফিসের উচিত এই সময়ে মাঠ পর্যায়ে কৃষকদের পরামর্শ দেওয়া। কিন্তু আমরা তো এখনো কারো দেখা পাইনি।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে এ উপজেলায় ১১ হাজার ২ শত ৫৪ হেক্টর জমিতে বোরো চাষ আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে অর্জন হবে ১১ হাজার ২ শত ৬০ হেক্টর। এ মৌসুমে এই অঞ্চলের কৃষকরা আবাদ করেছেন উচ্চ ফলনশীল ব্রি-২৮, ব্রি-২৯, ব্রি-৩৬, মিনিকেট, ভারতীয় জাত গুটি স্বর্ণা, কাটারিভোগ ও স্থানীয়জাত রণজিৎসহ বিভিন্ন প্রকার উচ্চ ফলনশীল ধান।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মো. খোরশেদ আলম বলেন, মাজরা পোকা দমনের জন্য ভুক্তভোগী কৃষক ব্যবহার করতে পারেন। এসিমিক্স ৫৫ ই সি ১০ মিলি প্রতি ১০ লিটার পানিতে মিশিয়ে ৫ শতাংশ জমিতে স্প্রে করতে হবে। একর প্রতি মাত্রা ২০০ মিলি। অথবা ল্যামিক্স ২৪.৭ এস সি ২০ মিলি প্রতি ১০ লিটার পানিতে মিশিয়ে ৫ শতাংশ জমিতে স্প্রে করতে হবে। একর প্রতি মাত্রা ৪০০ মিলি।

ডিমলা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা (কৃষিবিদ) মো. সেকেন্দের আলী বলেন, অভিযোগটি সঠিক নয়, মাঠ পর্যায়ে কৃষকদের সহযোগিতা করার জন্য উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তাগণ দিনরাত কাজ করে যাচ্ছে। এছাড়াও মাঠ পর্যায়ে কৃষকদের তাৎক্ষণিক সহযোগিতা করার জন্য মোবাইল অ্যাপসের মাধ্যমেও পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। তাই এবার বোরোর বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2024 Rangpurtimes24.Com
Developed BY Rafi IT