মঙ্গলবার, ১৮ Jun ২০২৪, ০২:১০ অপরাহ্ন

ইসি থেকে এনআইডি স্বরাষ্ট্রে নিতে বিল পাস হচ্ছে আজ

ইসি থেকে এনআইডি স্বরাষ্ট্রে নিতে বিল পাস হচ্ছে আজ

জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) নিবন্ধন নির্বাচন কমিশন (ইসি) থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনে নিতে সংসদে বিল পাস হচ্ছে আজ। বুধবার (১৩ সেপ্টেম্বর) সংদের কার্যসূচিতে জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন বিল, ২০২৩ পাসের বিষয়টি রয়েছে।

গত সোমবার (০৯ সেপ্টেম্বর) স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন বিল, ২০২৩ নামের বিলটি সংসদে উত্থপন করেন। ২০১০ সালের জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন আইনটি রোহিত করে নতুন এই আইন করা হচ্ছে। এই আইনের মাধ্যমে জন্মের পর থেকে নাগরিক জাতীয় পরিচয়পত্র পাবেন।

বিদ্যমান ব্যবস্থায় এনআইডি দিয়ে থাকে নির্বাচন কমিশন। নতুন আইনটি কার্যকর হলে ইসি সে ক্ষমতা হারাবে। এটি সরকারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা বিভাগের অধীনে একটি নিবন্ধকের আওতায় যাবে। অবশ্য আইনটি সরকারের গেজেট প্রজ্ঞাপন দিয়ে কার্যকর হবে বলে বিলে উল্লেখ করা হয়েছে।

বিলে বলা হয়েছে, বিদ্যমান আইনটি রহিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে নির্বাচন কমিশনের কাছে রক্ষিত এবং নির্বাচন কমিশন কর্তৃক সংগৃহীত জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন ও জাতীয় পরিচয়পত্র সংক্রান্ত সকল তথ্য–উপাত্ত নিবন্ধকের কাছে হস্তান্তরিত হবে।

বিলে বলা হয়েছে, জাতীয় পরিচয়পত্র দেওয়ার জন্য একজন নিবন্ধক থাকবেন। তিনি সরকার কর্তৃক নিযুক্ত হবেন। জাতীয় পরিচয়পত্র পাওয়ার জন্য প্রত্যেক নাগরিককে পরিচয় নিবন্ধন করতে হবে। এজন্য নির্ধারিত পদ্ধতিতে নিবন্ধকের কাছে আবেদন করতে হবে। একজন নাগরিককে নিবন্ধক একটি নম্বর দেবেন। সেটা একক পরিচিতি নম্বর (ইউনিক আইডেনটিফিকেশন নম্বর) হিসেবে সবখানে ব্যবহার হবে।

বিলে বলা হয়েছে, নির্বাচন কমিশনের চাহিদা মোতাবেক নিবন্ধক প্রয়োজনীয় তথ্য উপাত্ত প্রদান করবে। এজন্য নিবন্ধকের কার্যালয়ের অধীন একটি সেল থাকবে। এই সেলে নির্বাচন কমিশনের এক বা একাধিক কর্মচারী দায়িত্ব পালন করবে। এর ফলে নিবন্ধকের দপ্তর থেকে সরবরাকৃত তথ্যের ভিত্তিতি ইসি ভোটার তালিকা তৈরি করবে।

বিলে বলা হয়েছে, নিবন্ধন কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা, সমন্বয় ও পরিবীক্ষণের জন্য একটি সমন্বয় কমিটি থাকবে। এই কমিটির সভাপতি হবেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিব। নিবন্ধক হবেন এই কমিটির সদস্য সচিব। নির্বাচন কমিশন ও সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের প্রতিনিধিরা থাকবেন সদস্য।

বিলের উদ্দেশ্য ও কারণ সংবলিত বিবৃতিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন কার্যক্রম নির্বাহী বিভাগের দায়িত্বের অন্তর্ভুক্ত হওয়ার বিভিন্ন দেশের উদাহরণের ভিত্তিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীন সুরক্ষা সেবা বিভাগ দায়িত্ব পালনে উপযুক্ত কর্তৃপক্ষ বিবেচিত বিধায় সুরক্ষা সেবা বিভাগের মাধ্যমে এই সেবাটি জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেওয়ার উদ্দেশ্যে বর্তমান আইনটি সংশোধন করা প্রয়োজন।

সব বয়সের নাগরিকের জন্য জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন ও জাতীয় পরিচয়পত্র দেওয়ার লক্ষ্যে ‘জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন আইন, ২০১০’ প্রযোজ্য ক্ষেত্রে সংশোধন ও পরিমার্জনক্রমে হালনাগাদ করে জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন আইন, ২০২৩ প্রণয়নের উদ্যোগ সময়োপযোগী। এটি প্রত্যেক নাগরিককে নির্ধারিত শর্তসাপেক্ষে নিবন্ধিত হবার এবং এর ভিত্তিতে জাতীয় পরিচয়পত্র পাইবার ক্ষেত্রে কার্যকর ভূমিকা পালন করবে।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2024 Rangpurtimes24.Com
Developed BY Rafi IT